শেরপুরে অপহরণ করে ধর্ষনের দায়ে এক যুবকের ৪৪ বছরের কারাদন্ড

মো: কায়সার উদ্দিন, শেরপুর জেলা প্রতিনিধি: বুধবার (২৩ সে‡প্টম্বর) দুপুরে শেরপুরের নকলা উপজেলার পাঠাকাটা গ্রামে অষ্টম শ্রেনী পড়ুয়া স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগ মামলায় রানা মিয়া (২২) নামে এক যুবককে নারী ও শিশু ‍নি‌‌যাতন দমন আইনের দু’টি পৃথক ধারায় ৪৪ বছরের সশ্রম কারাদন্ডের রায় ঘোষনা করেছেন শেরপুরের শিশু আদালতের বিচারক মো: আক্তারুজ্জামান।

ঘটনার বিবরণে আদালত সূত্রে জানা যায়, শেরপুরের নকলা উপজেলার পাঠাকাটা স্কুলের অষ্টম শ্রেনী পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রীকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্যক্ত করতো রানা মিয়া। ২০১৬ নালের ৭ ফেব্রয়ারী ৪টার দিকে ওই স্কুলছাত্রীকে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে শেরপুরের নকলা উপজেলার পাঠাকাটা গ্রামের মৃত রইছ উদ্দিনের ছেলে রানা মিয়া তাকে জোরপূর্বক অপহরণ করে একটি সিএনজি অটোরিকশা যোগে পালিয়ে যায়। ওই ঘটনায় স্কুল ছাত্রীর চাচা বাদী হয়ে নকলা থানায় অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করলে নকলা থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপহরণকারী ধর্ষক রানা মিয়াকে গ্রেফতার করে ও স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করে।
এ ঘটনায় নকলা থানার পুলিশ ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল আদালতে একটি চার্জশীট দাখিল করে। মামলার বিচারকাজ চলাকালে আদালত থেকে জামিন নিয়ে অভিযুক্ত রানা মিয়া পালিয়ে যায়।
শিশু আদালতের পিপি এডভোকেট গোলাম কিবরিয়া বুলু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া ও সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বুধবার আদালত রায়ে বিচারক অভিযুক্ত রানা মিয়াকে ধর্ষণের অভিযোগে যাবজ্জীবন (৩০ বছর) ও ২০০০০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদন্ড এবং অপহরণের অভিযোগে ১৪ বছরের কারাদন্ড ও ২০০০০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদন্ডাদেশ দেয়া হয়। বিচারকাজ চলাকালে জামিন নিয়ে পলাতক থাকায় আসামীর অনুপস্থিতিতে বিচারক এ কারাদন্ডের রায় ঘোষনা করেন।

     More News Of This Category

Our Like Page