নিয়ামতপুরে আগুনে পাঁচ দোকানের মালামাল ভূস্মীভূত, ক্ষতি৬০ লক্ষাধীক।

নওগাঁ জেলাপ্রতিনিধি ঃ নওগাঁর নিয়ামতপুরের বাহাদুরপুর ইউনিয়নের খড়িবাড়ীহাট বাজারে আগুন লেগে পাঁচটি দোকান পুড়ে ভূস্মীভূত হয়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবি, আগুনে প্রায় ৬০ লক্ষাধীক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। মঙ্গলবার তার সাড়ে ১২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
পুড়ে যাওয়া দোকানগুলো হলো মা ইলেক্ট্রনিক্স সেন্টার, নিসুরা ইন্টারপ্রাইজ, রিতা টেলিকম এন্ড কসমেটিকস্্ ষ্টোর, সোহাগী পান স্টোর ও মর্তুজা হোটেল।
মা ইলেক্ট্রনিক্স সেন্টারের স্বত্তাধিকারী আশরাফুল ইসলাম আপেল বলেন, আমার যমুনা ইল্কেট্রনিক্সের শো-রুম ছিল, প্রায় ৫০ থেকে ৬০ লক্ষ টাকার মালামাল ছিল। সব পুড়ে ছাই। আমি এখন নিঃস্ব। আমার ন্যাশনাল ব্যাংক ও ব্র্যাক ব্যাংকে ২০ লক্ষ টাকা সিসি লোন রয়েছে। আমি এখন কিভাবে সেই লোন শোধ করবো। এই ব্যবসার উপরই আমার রুজি রোজগার। এখন কি করে সংসার চালাবো। সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে আমার আকুল আবেদন আমাকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করে পুনরায় সম্মানজনকভাবে জীবন যাপন করার সুযোগ করে দেবেন।
নিসুরা ইন্টারপ্রাইজের মালিক মঞ্জুর রাসেল বলেন, আমার ডিস এবং ইন্টারনেটের ব্যবসা। সব যন্ত্রপাতি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমার প্রায় ৫ লক্ষাধীক মালামাল পুড়ে ছাই গেয়ে গেছে। ফায়ার সার্ভিস খুব দ্রুতই আসছিল। কিন্তু পথে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ী রাস্তার নিচে উল্টে যাওয়ায় তানোর এবং নাচোল থানার ফায়ার সার্ভিস আসতে দেরী হওয়ায় ক্ষয়-ক্ষতি বেশী হয়েছে। আমাদের ধারণা ৫টি দোকানে প্রায় ৬০ লক্ষাধিক মালামাল পুড়ে গেছে।
রিতা টেলিকম সেন্টার এন্ড কসমেটিকস এর মালিক আব্দুল গনি বলেন, আমার প্রায় ২ লক্ষাধীক মালামাল পুড়ে গেছে। এটি আমার মার্কেট। আমি না হয় কোন রকমে আবার শুরু করতে পারবো। কিন্তু আমার পার্শ্বের দোকান আপেল, মর্তুজা এবং কামালদের সব শেষ হয়ে গেছে। তাদের কি হবে।
নিয়ামতপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত (ইনচার্জ) আরশেদ আলী জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্তলে রওনা হই। কিন্তু পথি মধ্যে দ্রুত যাওয়ার কারণে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের জারুল্যাপুর গ্রামের মোড়ে আমাদের গাড়ী উল্টে রাস্তার নিচে পড়ে যায়। আমাদের গাড়ী উল্টে যাওয়ায় কারণে আমরা তানোর এবং নাচোল ফায়ার স্টেশনে সংবাদ দিলে তারা এসে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। ধারণা করা হচ্ছে, বৈদ্যুতিক ত্রুটি থেকে এ আগুন লেগেছে।

     More News Of This Category

Our Like Page